Breaking

Thursday, August 13, 2020

Life Science Questions Answers Part-1 | জীবন বিজ্ঞান প্রশ্ন ও উত্তর মাধ্যমিক পরীক্ষার্থীদের জন্য এবং সমস্ত চাকুরীর পরীক্ষার জন্য


Life Science Questions Answers Study4Crack is the best place to prepare for any competitive exams. Its provides you competitive exam special study materials, Current Affairs. Study Materials are based on West Bengal Police exams, Indian Railway exams, West Bengal PSC exam, Civil Services exams, Indian post Job Exams, Ssc, Upsc, Rbi, Group-D exams or any kind of State or Central Govt. exams.  Read and Download Daily, Monthly and Yearly Current Affairs From Study4Crack and Prepare for various competitive exams like banking, wbcs, upsc, wbp, psc, ssc. You Can also download GK, Gi, Math Question-papers, Syllabus,  etc in Pdf format, free of cost on our website. Visit Study4Crack to get job notifications, Current Affairs and Study materials and update yourself. Today We Provide Life Science Questions Answers  In Bengali series.
জীবন বিজ্ঞান প্রশ্ন ও উত্তর মাধ্যমিক পরীক্ষার্থীদের জন্য এবং সমস্ত চাকুরীর পরীক্ষার জন্য
জীবন বিজ্ঞান প্রশ্ন ও উত্তর 


জীবন বিজ্ঞান প্রশ্ন ও উত্তর

বিষয় :- কোশ-বিভাজন ও জীবনের প্রবাহমানতা

1. কোশ-বিভাজন কাকে বলে?
উঃ যে প্রক্রিয়ায় জনিতৃ কোশ থেকে অপত্য কোশ সৃষ্টি হয় তাকে কোশ বিভাজন বলে।

2. কে, কবে, কোথায় প্রথম কোশ-বিভাজন পর্যবেক্ষণ করেন?
উঃ বিজ্ঞানী ফ্লেমিং ১৮৮০ খ্রীষ্টাব্দে স্যালামাণ্ডারের দেহে প্রথম কোশ-বিভাজন পর্যবেক্ষণ করেন।

3. মাতৃকোশ বা জনিতৃ কোশ বলতে কী বোঝ?
উঃ কোশ-বিভাজন প্রক্রিয়া যে কোশপ্টি বিভাজিত হয় তাকে মাতৃকোশ বা জনিতৃ কোশ বলে।

4. অপত্য কোশ বলতে কী বোঝ?
উঃ কোশ-বিভাজন প্রক্রিয়ায় উৎপন্ন কোশকে অপত্য কোশ বলে।

5. কোশের প্রধান অংশ কটি ও কী কী?
উঃ কোশের প্রধান অংশ দুটি। যথা সাইটোপ্লাজম ও নিউক্লিয়াস।

6. কোশ-বিভাজন কয়প্রকার ও কী কী?
উঃ কোশ-বিভাজন তিন প্রকার। যথা অ্যামাইটোসিস, মাইটোসিস ও মায়োসিস।

7. কোশবিভাজনের কোন দশায় ক্রোমোজোমগুলি স্পষ্ট দেখা যায়?
উঃ কোশ-বিভাজনের মেটাফেজ দশায় ক্রোমোজোমগুলি স্পষ্ট দেখা যায়।

8. মাইটোসিস কোশ-বিভাজনের কোন দশায় ক্রোমোজোমগুলির বিভাজন মাকুর নিরক্ষীয়তলে সজ্জিত থাকে?
উঃ মেটাফেজ দশায়।

9. মানুষের দেহকোশের ক্রোমোজোম সংখ্যা কত?
উঃ মানুষের দেহকোশের ক্রোমোজোম সংখ্যা ২৩ জোড়া বা ৪৬টি। ৪৪টি অটোজোম ও ২টি সেক্সক্রোমোজোম।

10. মাইটোসিস কোশ-বিভাজনের কোন দশায় নিউক্লিয়াসের পুনরাবির্ভাবের ঘটনা ঘটে থাকে?
উঃ টেলোফেজ দশায়।

11. মাইটোসিস বিভাজনের কোন দশায় ক্রোমোজোমগুলি দুটি ক্রোমাটিড যুক্ত হয়?
উঃ প্রফেজ ও মেটাফেজ দশায়।

12. মাইটোসিস বিভাজনের কোন দশায় ক্রোমোজোমগুলি একটি ক্রোমাটিড যুক্ত হয়?
উঃ অ্যানাফেজ ও টেলোফেজ দশায়।

13. ক্রোমোজোমের কোন অংশে বেমতন্তু (Spindle fibre) সংযুক্ত থাকে?
উঃ সেন্ট্রোমিয়ার অংশে।

14. একটি প্রাণীকোষে সেন্ট্রোজোম না থাকলে বিভাজনের ক্ষেত্রে কী ঘটবে?
উঃ প্রাণীকোশে সেন্ট্রোজোম না থাকলে স্পিন্ডল গঠিত হবে না এবং যার ফলশ্রুতি ক্রোমোজোমের অসম বণ্টন কিংবা একাধিক নিউক্লিয়াসযুক্ত কোশগঠন।

15. বিভাজিত হতে পারে না এমন তিনটি প্রাণীকোশের নাম লেখ।
উঃ (১) নার্ভকোশ (Nerve cell) বা নিউরোন (Neurone), (২) পেশীকোশ (Muscle cell) ও (৩) রক্তকোশ (Blood cell)

16. জিন কোথায় অবস্থিত?
উঃ জিন ক্রোমোজোমে অবস্থিত।

17. মেটাফেজ দশায় ক্রোমোজোমের অবস্থান উল্লেখ করো?
উঃ মেটাফেজ দশায় ক্রোমোজোম স্পিন্ডলের ইকুয়েটোরিয়াল প্লেনে বা নিরক্ষীয় তলে অবস্থান করে।

18. স্টেমবডি কাকে বলে?
উঃ কোশ-বিভাজনের অ্যানাফেজ দশায় বেমের মাঝখানে যে সকল ইন্টারজোনাল তন্তু অবস্থান করে তাদের একত্রে স্টেমবডি বলে।

19. স্পাইরালাইজেশান বলতে কী বোঝ?
উঃ ক্রোমোজোমের তন্তুগুলির পেঁচানোর পদ্ধতিকে স্পাইরালাইজেশান বলে।

20. ডি-স্পাইরালাইজেশান বলতে কী বোঝ?
উঃ ক্রোমোজোমের তন্তুগুলির পাক খুলে যাওয়ার পদ্ধতিকে বলে ডি-স্পাইরালাইজেশান।

21. হাইড্রেশান ও ডি-হাইড্রেশান কাকে বলে?
উঃ জল সংযোজন পদ্ধতিকে বলে হাইড্রেশান আর জল বিয়োজন প্রক্রিয়াকে বলে ডি-হাইড্রেশান।

22. DNA–এর সম্পূর্ণ নাম কী? কোশের এর অবস্থান কোথায়?
উঃ DNA–এর সম্পূর্ণ নাম হল ডি-অক্সিরাইবো নিউক্লিক অ্যাসিড। কোশে DNA–এর অবস্থান নিউক্লিয়াসের ক্রোমোজোমে।

23. বংশগতির ধারক ও বাহক কাকে বলে?
উঃ জিনকে বংশগতির ধারক ও বাহক বলা হয়।

24. উদ্ভিদ ও প্রাণীর দেহ প্রধানত কয় প্রকার কোশ দ্বারা গঠিত? কী কী?
উঃ দুই প্রকার কোশ দ্বারা গঠিত। যথা – (১) সোমাটিক কোশ বা দেহ কোশ বা অঙ্গজ কোশ এবং (২) জনন কোশ বা জার্ম কোশ।

25. কোশ-বিভাজনের প্রয়োজনীয়তা বা তাৎপর্যগুলি উল্লেখ করো।
উঃ কোশ বিভাজনের প্রয়োজনীয়তা বা তাৎপর্যগুলি হল

(১) কোশ-বিভাজনের মাধ্যমে জীবদেহের আকার ও আয়তনের বৃদ্ধি হয়ে থাকে।

(২) এককোষী ভ্রূণাণু থেকে বহুকোশী জীবের সৃষ্টি কোশ-বিভাজনের মাধ্যমেই সম্ভব।

(৩) অঙ্গজ-জনন কোশ বিভাজনেই হয়ে থাকে।

(৪) অযৌন ও যৌন-জননে অর্থাৎ বংশবিস্তারে কোশ-বিভাজন অপরিহার্য।

(৫) ক্ষতিগ্রস্ত অঙ্গ-প্রত্যঙ্গাদি এবং ক্ষত পুনর্গঠনে কোশ-বিভাজন উল্লেখযোগ্য ভূমিকা গ্রহণ করে।

26. ক্রোমোজোমের রাসায়নিক গঠন কী?
উঃ প্রাথমিকভাবে ক্রোমোজোমে ৯০% DNA ও ক্ষারীয় প্রোটিন এবং ১০% RNA ও অম্লীয় প্রোটিন থাকে। Ca, Mg, Fe ইত্যাদি কয়েকটি ধাতব আয়ন থাকে। ক্রোমোজোম প্রধানত হিস্টোন এবং হিস্টোনবিহীন প্রোটিন ও নিউক্লিক অ্যাসিড (DNA RNA) দ্বারা গঠিত।

27. DNA-র গঠন কে কবে আবিষ্কার করেন?
উঃ ১৯৫৩ খ্রীষ্টাব্দে বিখ্যাত দুই রসায়নবিদ জে. ডি. ওয়াটসন এবং এফ. এইচ. সি. ক্রিক DNA-এর গঠন সম্পর্কে প্রথম অবহিত করেন।

28. DNA–এর কটি উপাদান? কী কী?
উঃ DNA-এর প্রধান উপাদান হল পাঁচটি কার্বন পরমাণুযুক্ত শর্করা, ফসফেট এবং একটি ক্ষারক (Base), যথা অ্যাডেনিন, গুয়ানিন, সাইটোসিন, থাইমিন।

29. নিউক্লিওটাইড বলতে কী বোঝ?
উঃ একটি ফসফেট, একটি শর্করা এবং একটি Base বা ক্ষারক সহযোগে গঠিত হয় DNA-এর এক একটি ইউনিট বা একক। এই এককগুলি নিউক্লিওটাইড (Nucleotide) নামে পরিচিত।

30. পলিনিউক্লিওটাইড কী?
উঃ DNA-এর বৃহৎ অণু পরস্পরের সঙ্গে পাকানো (helical) দুটি সূক্ষ্ম সূত্রাকারে অবস্থান করে যা প্রকৃতপক্ষে অনেকগুলি নিউক্লিওটাইড-এর সমন্বয়। এই সূক্ষ্ম সূত্রগুলি পলিনিউক্লিওটাইড (Polynucleotide) নামে খ্যাত।
আরও পড়ুনঃ ভরতের ভূগোল অনলাইন মক টেস্ট পর্ব- ৩
আরও পড়ুনঃ বাছাই করা বাংলা কারেন্ট অ্যাফেয়ার্স ৭ই আগস্ট থেকে ১০ই আগস্ট

No comments:

Post a Comment

If you have any doubts. Please let me know